শ্রীপুরে খামারিদের স্বার্থরক্ষায় ভরাট হচ্ছে সরকারি খাল।

প্রকাশিত: ৬:৩২ অপরাহ্ণ, মার্চ ১০, ২০২০ প্রিন্ট করুন

আফজাল হোসেন (নিজস্ব প্রতিবেদক)- গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার মাওনা ইউনিয়নের ভেরামতলী গ্রামে প্রায় ৯০ বিঘা জমির উপর গড়ে উঠা একটি মৎস্য খামার প্রকল্পের স্বার্থ জড়িত থাকায় সরকারি তফসিল বর্ণিত খালের বুকে ফেলা হচ্ছে মাটি।সেই সাথে স্থানীয় এমপির নাম ভাঙ্গিয়ে খাল ভরাট করে তৈরী হচ্ছে রাস্তা।

জানা যায়, রাথুরা মৌজায় অবস্থিত আরএস ৫৫৩৬ ও এসএ ২০৪২ নং দাগে একসময়কার প্রসিদ্ধ গঙ্গার খালটির ছিল নিজস্ব স্রোতধারা।কয়েক বছর পূর্বেও যেখানে দল বেঁধে মাছ ধরতে যেত গ্রামের আবাল-বৃদ্ধ-বনিতা।আজ গ্রামবাসীর সেই প্রিয় খালটি পরিণত হয়েছে মাটির স্তুপে।

বয়সের ভারে নুয়ে পড়া কৃষক আবু তাহের জানান,এই গঙ্গার খালটি ছিল আমাদের এলাকার একটি ঐতিহ্য। ছেলেবেলায় এখানে আমরা প্রচুর মাছ পেতাম,আশপাশের কয়েক গ্রামের লোকজনও আসতো। তাছাড়া বর্ষাকালে এলাকার পানি নিষ্কাশনের অন্যতম মাধ্যম ছিল এই খালটি।এখন খাল ভরাটের দৃশ্য দেখে মনের অজান্তেই চোখে পানি এসে যায়।

এলাকাবাসী জানায়, ঢাকা থেকে তিন চার জন প্রভাবশালী ব্যক্তি কৃষকের প্রায় ৯০ বিঘা জমি লিজ নিয়ে মৎস্য খামারটি গড়ে তুলতে স্থানীয়ভাবে একটি কমিটি করে দেন।কমিটির নেতৃত্ব দেন গুলজার হোসেন,স্বপন মিয়া,জালাল,মজিবুর সহ অনেকে। কমিটির কাজ হল কেউ যদি জমি দিতে অপরাগতা প্রকাশ করেন তবে তাকে হুমকি ধমকি দিয়ে জায়গা লিজ দিতে বাধ্য করা।

এই খামারটির পশ্চিম পাশ দিয়ে খালের যে অংশটি রয়েছে সেখানেই মূলত তারা তাদের সীমানা নির্ধারণ করেছেন।অর্থাৎ খালের বুকের উপর দিয়ে প্রাচীর নির্মাণ করে ভরাট করছেন খালটি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কৃষক জানান, আঃজলিল নামক এক নামধারী নেতা স্থানীয় এমপি মুহাম্মদ ইকবাল হোসেন সবুজের লোক বলে নিজেকে পরিচয় দেয়।এই খালটি ৭০ হাজার টাকার বিনিময়ে খামারের কাছে বিক্রি করেছেন বলে শুনতে পেরেছি।তবে এবারের বর্ষায় পানি বের হবার কোন রাস্তা না থাকায় মনে হয় আমাদের ফসলি জমি পানিতে তলিয়ে যাবে।

মাওনা ইউনিয়ন পরিষদের ৬ নং ওয়ার্ডের সদস্য আতাউর রহমান বলেন,খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে গিয়েছি।ওদের সকলকে ডেকে সরকারি খাল থেকে মাটি সরানোর জন্য বলা হয়েছে।

এবিষয়ে মাওনা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম খোকন জানান,গঙ্গার খালে মাটি ভরাটের বিষয়টি আমাকে কেউ অবগত করেনি।সরকারি খাল কারও ব্যক্তিগত জায়গা হতে পারেনা।অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।