শ্রীপুরে বাজারের গনজমায়েতের সংবাদ ফেইসবুকে দেয়ায় গণমাধ্যম কর্মীকে হত্যার হুমকি।

প্রকাশিত: ৮:৪৮ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৬, ২০২০ প্রিন্ট করুন

আফজাল হোসেন(নিজস্ব প্রতিবেদক): করোনা ভাইরাস প্রতিরোধের লক্ষ্যে সারাদেশে সরকারী বেসরকারী সব প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়। গাজীপুর জেলা করোনা ভাইরাস সংক্রামনের সংখ্যা বেশী থাকায় ইতোমধ্যে পুরো জেলা লকডাউন ঘোষণা করেন জেলা প্রশাসক।

কিন্তু জেলা প্রসাশকের আদেশকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার জৈনাবাজারে সব ধরনের দোকানপাট খোলা রেখে ব্যবসা পরিচালনা করার আদেশ দেন ঐ বাজারের ইজারাদার সাহাবুদ্দিন। পরে বাজারের দোকানপাট খোলা ও প্রচুর লোক সমাগমের খবর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে (ফেইসবুক) প্রচার করে
একটি বেসরকারী টেলিভিশনের গাজীপুর জেলার প্রতিনিধির ব্যাক্তিগত ক্যামেরাপার্সন ও বাাংলাদেশ সমাচার পত্রিকার ক্রাইম রিপোর্টার (শ্রীপুর) রমজান আলী রুবেল।
এ কারণে ঐ বাজারের ইজারাদার সাহাবুদ্দিন প্রথমে মোবাইল ফোনে ও পরে প্রকাশ্যে রমজানকে হত্যার হুমকী দেয়। এঘটনায় গণমাধ্যম কর্মী রমজান আলী রুবেল নিরাপত্তা চেয়ে গত ১৫ এপ্রিল বুধবার শ্রীপুর মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়রী (জিডি) করেছেন।

সাধারণ ডায়রী সূত্রে জানা যায়, শ্রীপুরের জৈনাবাজারের ইজারাদার সাহাবুদ্দিন সরকারী ঘোষণা (লক ডাউন) অমান্য করে গত ১৪ এপ্রিল মঙ্গলবার ঐ বাজারের ব্যবসায়ীদের দোকানপাট খুলতে বাধ্য করে জন সমাগমের সৃষ্টি করে। এতে করে এলাকায় কভিট-১৯ করোনা ভাইরাসের সংক্রমনের ঝুকি থাকায় গণমাধ্যম কর্মী রমজান সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে (ফেইসবুক) একটি লেখা পোষ্ট করে। পরে ঐদিনই বিকেলে মোবাইল ফোনে ইজারাদার সাহাবুদ্দিন রমাজান (০১৭৩০-৯২২৪০৪) নাম্বার থেকে রমজানকে হত্যার হুমকী দেয়। আবার একইদিন সন্ধ্যায় ঐ বাজারেই রমজানকে ডেকে নিয়ে দলবলে প্রকাশ্যে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করে যেকোন উপায়ে প্রাণ নাশের হুমকী দেয়। পরে রমজান নিজের এবং পরিবারের নিরাপত্তা চেয়ে শ্রীপুর থানায় একটি সাধারন ডায়রী করেন।এ

বিষয়ে শ্রীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) লিয়াকত আলী বলেন, প্রাথমিক পর্যায়ে অভিযোগটি সাধারণ ডাইরি (জিডি) হিসেবে নথিভূক্ত করা হয়েছে। পরবর্তীতে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।