শখের ক্যামেরা বিক্রি করে গরীবের পাশে রাহাত।

প্রকাশিত: ১:২৭ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৩, ২০২০ প্রিন্ট করুন

আফজাল হোসেন(নিজস্ব প্রতিবেদক): কাওরাইদ ইউনিয়নের উদ্যমী যুবক রাহাত আকন্দ।মানুষের সেবা করাই যার নেশা।অবসর সময় কাটানোর জন্য কয়েকমাস পূর্বে বাবার কাছে বায়না ধরে একটি ডিএসএলআর ক্যামেরা কিনেছিলেন।

মহামারি করোনা দেখা দেয়ার পর গৃহবন্দী মানুষের আর্তনাদ সইতে না পেরে শখের ক্যামেরাটি বিক্রি করে দাঁড়ালেন অসহায় মানুষের পাশে।সেই টাকা দিয়ে শেষ পর্যন্ত শ্রীপুর উপজেলার কাওরাইদ গ্রামের রাহাত আকন্দ নানা রকম খাদ্যসামগ্রী নিয়ে দাঁড়িয়েছেন অনাহারী মানুষগুলোর পাশে।
একই সঙ্গে পাড়া মহল্লা ও অলি গলিতে ছিটাচ্ছেন জীবাণুনাশক স্প্রে।

কাওরাইদ রেলওয়ে স্টেশনেও তিনি স্প্রে করছেন। শতাধিক অভাবী পরিবারকে চাল-ডালসহ নানা খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেন কাওরাইদ গ্রামের মুজিবুর রহমান আকন্দের ছেলে রাহাত।

এবিষয়ে রাহাত জানান, ক্যামেরা বিক্রির করে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করলেও পরে অনেকেই এগিয়ে আসেন। এলাকার বিত্তশালী বন্ধু-বান্ধবও তাকে সহযোগিতা করেছেন। চাল, ডাল, তেল, লবণ, পিঁয়াজসহ ১০ কেজি পরিমাণ খাদ্যসামগ্রী শতাধিক পরিবারের ঘরে পৌঁছে দিয়েছেন তিনি। রাহাতের কাজ এখানেই শেষ নয়, কাওরাইদের বিভিন্ন সড়কে মোড়ে মোড়ে দাঁড়িয়ে হ্যান্ড মাইক দিয়ে নানাভাবেই মানুষকে সচেতন করছেন। ঘর থেকে বের না হওয়ার জন্য প্রচার চালাচ্ছেন।